বিকাশ এপ্সের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করে পেয়ে যান ১৫০ টাকা বোনাস

বিকাশ এপ্সের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করে পেয়ে যান ১৫০ টাকা বোনাসঃ-এখন বিকাশ অ্যাপে  রেজিস্ট্রেশন করে জিতে নিতে পারবেন ১৫০ টাকা বোনাস।এখন আর আপনাকে বিকাশ একাউন্ট খুলতে বিকাশ এজেন্টের কাছে যেতে হবে না।এখন আপনি ঘরে বসেই শুধুমাত্র আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনের মাধ্যমে একটি বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারেন। এবং এর জন্য আপনাকে কোন প্রকার টাকা দিতে হবে না বরংচ আপনি একতারার পরিশ্রম করে প্রথমবার লগইন করলে পাবেন ১০০ টাকা  ইনস্ট্যান্ট বোনাস। এবং অ্যাপস দ্বারা প্রথমবার ২৫ টাকা রিচার্জে পাবেন ৫০ টাকা ক্যাশব্যাক। খুব সহজেই বুঝতে পারছেন এখন আপনি আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইল থেকে আপনার আইডি কার্ডের মাধ্যমে যদি একটি বিকাশ একাউন্ট খুলেন তাহলে সম্পূর্ণ ফ্রিতে পেয়ে যাবেন দেড়শ টাকা। এবং আপনার কোন খরচ হবেনা বিকাশ একাউন্ট খুলতে।
বিকাশ রেজিস্ট্রেশন করে জিতুন ১৫০ টাকা
আপনি এখানে বোনাস পাবেন মোট তিনটি স্টেপে-
১- অ্যাপস এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করলে পাবেন ৫০ টাকা।
২- অ্যাপসে আপনি লগইন করলে পাবেন ৫০ টাকা।
৩- অ্যাপসের মাধ্যমে প্রথমবার ৫০ টাকা রিচার্জে পাবেন ৫০ টাকা ক্যাশব্যাক।
যেভাবে আপনি বিকাশ অ্যাপস এ রেজিস্ট্রেশন করবেন-

⏩প্রথমে আপনি এই লিংক থেকে বিকাশ অ্যাপস টি ডাউনলোড করে নিন!
আপডেট বিকাশ এপ্স ডাউনলোড লিংক  Click Hare..
 আপনি লিংকটিতে ক্লিক করার মাধ্যমে সরাসরি আপনাকে প্লেস্টরে নিয়ে যাওয়া হবে।এবং প্লে স্টোর থেকে আপনি আপডেট বিকাশ অ্যাপস টি ডাউনলোড করে নিন।

⏩ অ্যাপসটি ডাউনলোড এবং ইন্সটল হয়ে গেলে পরে ওপেন করুন। যেসকল পারমিশন চাইবে সবগুলোই Yes করে দিন।

⏩আপনি যে সিমটিতে বিকাশ একাউন্ট খুলবেন সেটি অবশ্যই  যে ফোনে অ্যাপস ইন্সটল করেছেন সেটিতে চালু থাকা লাগবে। কারণ বিকাশের OTP  ভেরিফিকেশন অটোমেটিক হওয়ার কারণে অবশ্যই আপনার ফোনটিতে সিমটি চালু থাকা লাগবে।

⏩ বিকাশ অ্যাপটি ওপেন করার পরে  অ্যাপস এর উপরে থাকা Log in/registration  লেখাটিতে ক্লিক করুন।

⏩ আপনাকে একটি নতুন পেজ এ নেওয়া হবে। এবং সেখানে আপনি দুইটি অপশন দেখতে পাবেন একটি লগইন এবং আরেকটি হচ্ছে নতুন রেজিস্ট্রেশন করার জন্য। আপনার যদি আগে বিকাশ একাউন্ট থাকে সেক্ষেত্রে আপনি এখানে লগইন করার মাধ্যমে বোনাস গ্রহণ করতে পারেন।(  লগইন করলে আপনি বোনাস পাবেন শুধু মাত্র ১০০টাকা। লগইন বোনাস ৫০টাকা এবং ২৫ টাকা রিচার্জে বোনাস পাবেন ৫০ টাকা) সম্পূর্ণ বোনাস পেতে আপনি নতুন একটি একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন করুন। এর জন্য আপনি রেজিস্ট্রেশনের  অপশনটিতে ক্লিক করুন।

⏩ এরপরে আপনার যে নাম্বারে টিতে বিকাশ একাউন্ট করবেন সেই নাম্বারটি চাইবে। সেক্ষেত্রে খালি পড়ে আপনার নাম্বারটি দিন।আপনার আপারেটর সিলেক্ট করুন।এবং আপনার নম্বর একটি মেসেজ আসবে এবং অটোমেটিক নাম্বার ভেরিফাই হয়ে যাবে।

⏩টার্মস এন্ড কন্ডিশন দেখুন এবং i agree সিলেক্ট করুন।

⏩ বিকাশ একাউন্ট খুলতে শুধুমাত্র আপনার আইডি কার্ডটি লাগবে। এছাড়া আর কোন ডকুমেন্ট প্রয়োজন করবেন। এবং যার আইডি কার্ড তাকে প্রয়োজন পরবে কারন  সেলফির মাধ্যমে ছবি তুলে আইডি ভেরিফাই করতে হবে। তবে এটি খুবই সহজ তাই চিন্তার কোন বিষয় নেই।

⏩ এরপরে আপনার আইডি কার্ডের প্রথমে উপরের পিঠ। অর্থাৎ যেখানে আপনার ছবি এবং আইডি কার্ডের নম্বর আছে সেটির ছবি তুলুন। এরপরে আপনার আইডি কার্ডের পিছনের পাস ছবি তুলে কনফার্ম করে দিন।

⏩ এরপরে দেখতে পাবেন আপনার সকল নাম ঠিকানাসহ একটি ফরম চলে আসছে। আপনার সকল তথ্য ঠিকঠাক আছে কিনা দেখে দিন। যদি ঠিক না থাকে তাহলে এডিট করার মাধ্যমে ঠিক করে দিন। সবগুলো ঠিকঠাক হয়ে গেলে আপনি পরবর্তী স্টেপে চলে যান।

⏩ এরপর আপনার সেলফি তুলতে হবে। আপনার ক্যামেরা কি অন হবে তখন আপনাকে ভালোভাবে একটি সেলফি তুলতে হবে। তোলা হয়ে গেলে সেটা কনফার্ম করে দিন এবং আপনার কাজ শেষ।  পিন সেট করার পরে। আপনার আইডিতে লগইন করুন এবং বোনাস পেয়ে যান।

(বিঃদ্রঃ এখানে স্ক্রিনশট নেওয়া যায় না দেখে কোন প্রকার স্ক্রিনশট বা ছবি দেয়া গেল না)

বোনাস পাবার শর্ত সমূহ-

সকলেই বোনাস পাবেন। তাই  অফারের ডেট শেষ না হওয়ার আগেই রেজিস্ট্রেশন করে নিন।

ইনভেস্ট করে আয় করার আগে পোস্টটি পড়ুন এবং আরেকবার ভাবুন

ইনভেস্টমেন্ট সাইট এ কাজ করার আগে অবশ্যই আপনার এই পোস্টটি পড়ে নেয়া উচিত।কারণ  বর্তমান সময়ে আমরা অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের ইনভেস্টমেন্ট সাইট দেখতে পাই যেখানে ইনভেস্ট করার মাধ্যমে আমরা ইনকাম করতে পারি। তবে ইনভেস্টমেন্ট সাইট এ কাজ করার আগে আমাদের অবশ্যই ভাবা উচিত সাটটি কতটুকু  নির্ভরযোগ্য। এবং সাইটের বিষয়বস্তু কি আমরা অনেকেই হয়তো চিন্তা করি ইনভেস্ট করে অনেক টাকা আয় করার। এখানে হয়তো আপনি ইনভেস্ট করে লাভবান হবেন কিন্তু আপনার বিপরীতে অন্য কেউ অবশ্যই লোকসানের সম্মুখীন হবেন। এখানে বিপরীতে বললে ভুল হবে আপনার মত অন্য কেউ এখানে লোকসানের সম্মুখীন হবে। কারণ আপনার বিপরীতে যে থাকবে সে অবশ্যই এর থেকে তার ফায়দা তুলে নেবে।
ইনভেসমেন্ট সাইটে কাজ করার আগে ভাবুন 
আসুন জেনে নেওয়া যাক ইনভেস্টমেন্ট সাইট এর সম্পর্কে কিছু তথ্য,  আমরা অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের ইনভেস্টমেন্ট সাইট দেখে থাকি।যেখানে ইনভেস্ট করার মাধ্যমে আপনি ইনকাম করতে পারবেন। সেখানে ইনভেস্ট করার পর আপনার কাজ হয় তাদের সাইটের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করা এবং বিজ্ঞাপনে ক্লিক করা। এবং রেফারেল করার মাধ্যমে তাদের নতুন নতুন মেম্বারদের যুক্ত করা। এর মাধ্যমে আপনি ইনকাম করতে পারেন। আপনি বলতে পারেন যে আপনার এখন পর্যন্ত এক টাকাও মায়ের চাইনি বা আপনি কোন লোকসানের সম্মুখীন হননি। আপনার কাজ করে লাভ থেকেছে। আচ্ছা ভেবে দেখুন তো  মনে করুন আপনি পনেরশো টাকা ইনভেস্ট করলেন। এবং আপনাকে শর্তযুক্ত করে দেয়া হলো আপনার আয়ের টাকা উঠাতে হলে অবশ্যই  তিনজন একটিভ রেফারেল লাগবে। তাহলে আপনার উপার্যিত অর্থ তুলতে পারবেন। আপনার প্রতিদিনের ইনকাম হবে ১০০ টাকা  এবং আপনি ১৫০০ টাকা না হলে তুলতে পারবেন না। আপনি  ইনভেস্ট করলেন তিনজন একটিভ রেফারেল পেলেন এবং ১৫ দিন কাজ করার পরে পনেরশো টাকা উইথ্র দিলেন টাকাও পেলেন। এরপরে সাইটে আপনি আর ১৫ দিন কাজ করলেন আবার ১৫০০ টাকা পেলেন। তাহলে আপনার লাভ হল ১৫০০ টাকা।আপনি মাত্র ১০ মিনিট করে প্রতিদিন কাজ করেছেন। এর পরবর্তী ১৫ দিন কাজ করলেন।কিন্তু আপনি  উইথড্রো দিলেন কিন্তু টাকা পেলেন না। তখন আপনি বললেন আপনি লস খাননি আপনি এই সাইট থেকে ৩ হাজার টাকা ইনকাম করেছেন। ইনভেস্ট করেছিলেন ১৫০০ টাকা বাকি ১৫০০ টাকা লাভ।
don't work investment site
চলুন এখন আসি আসল কথায় আপনারা যেহেতু তিনজন অ্যাক্টিভ রেফারেল লেগেছে  টাকা উইড্রো করতে। তাহলে তাদের প্রত্যেকের পনেরশো টাকা করে ইনভেস্ট করতে হয়েছে। অর্থাৎ তারা তিনজন ইনভেস্ট করেছে ১৫০০*৩=৪৫০০ টাকা। অর্থাৎ আপনার রেফারেল এর তিনজনের ৪৫০০ টাকা  এবং আপনার ১৫০০ টাকা মোট ৬০০০ টাকা। এবার ধরুন আপনার ওই  রেফারেলে  যুক্ত হওয়া তিন ব্যক্তি তিনজন করে এক্টিভ  রেফারেল পাইনি।অথবা তারা তিনজনের ১ জন পেয়েছে বাকি একজন ২ জন আরেক জন একজনও না।তাহলে  আপনারা দুইজন পেমেন্ট পেয়েছেন ৬০০০ টাকা। আপনাদের দুইজনের দ্বারা রেফারাল করায় তাদের আয় হয়েছে  ৬০০০+৪৫০০+৩০০০=১৩৫০০ টাকা। এর বিপরীতে তাদের ব্যয় হয়েছে মাত্র ৬০০০ টাকা। তাহলে বলুন তো তাদের লাভ হয়েছে কত টাকা? নিশ্চই ৭৫০০ টাকা। এটি শুধুমাত্র আপনার উদাহরণ দিলাম। এরকম হাজার হাজার মেম্বার  দ্বারা তারা ইনভেস্ট করায়। তারা যদি এক মাসে ৫০০ জন ইনভেস্ট করাতে পারে তাহলে তাদের আয় ৫০০*১৫০০=৭,৫০,০০০টাকা। তারা পেমেন্ট দিল ১০০ জন কে ১০০*৩০০০=৩০০,০০০ টাকা। এক্ষেত্রে তাদের সব খরচ বাদ দিয়ে আয় হলো ৭,৫০,০০০-৩,০০,০০০=৪,৫০,০০০ টাকা। তাহলে চিন্তা করুন তাদের আয়ের পরিমাণ কত গিয়ে দ্বারায় এক মাসে। পরে তাদের সাইটে যে এড নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে তার থেকে তো কিছু না হলেও ইনকাম হয়। ধরে নেই সেটা তোদের সাইট তৈরীর জন্য যে টাকা খরচ গেছে তার সময়। এছাড়া এই সকল মেম্বার সবাই কাজ করেছে নিয়মিত যার ফলে তাদের অ্যাডসেন্সে আর পরিমাণ ও কম হয়না।
কখনো ভাবি নি আমার সাথে এমনটা হবে 
তাহলে খুব সহজেই আপনারা বুঝতে পারছেন ইনভেস্টমেন্ট সাইট এর প্রতারণা কোন ধরনের হয়ে থাকে। তারা বিভিন্ন লোভনীয় অফার দিয়ে আপনাকে ইনভেস্ট করানোর জন্য। পরবর্তীতে আপনি যখন ইনভেস্ট করবেন ঠিক তখনই আপনি  হয়তো পেমেন্ট পাবেন হয়তো পেমেন্ট পাবেন না। আপনি যদি লাভবান হয়েও থাকেন অন্য কেউ নিশ্চয়ই লোকসানের সম্মুখীন হয়েছেন। এবার সিদ্ধান্ত আপনার আপনি ইনভেস্টমেন্ট সাইট এ কাজ করবেন কি করবেন না। তবে আপনার এই সামান্য উপার্জনের জন্য ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে হাজার হাজার স্টুডেন্ট  আমি শুধুমাত্র একটি উদাহরণ দিলাম।এর চাইতেও অনেক বড় বড় প্রতারক রয়েছে অনলাইনে। কারণ অনলাইনে কে আপনার সাথে প্রতারণা করল সে আপনার ধরাছোঁয়ার বাইরে। আপনি চাইলেই তাকে জবাবদিহি করতে পারবেন না। এবং তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন না। কিন্তু অনলাইনের পরিধি বিস্তৃত হওয়ার কারণে তারা আপনার মতো হাজার হাজার লোক পেয়ে যায়  ফাঁদে ফেলার জন্য। আপনার থেকে তারা পনেরশো টাকা নিয়েছে এজন্য আপনি কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন না। কিন্তু অনেক জনের কাছ থেকে এরকম টাকা নিয়ে  তারা খুব সহজেই লাখপতি হয়ে উঠতে পারে। তাই অনলাইনে কোন জায়গায় ইনভেস্ট করতে হলে ভেবে তারপরে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করুন। কারণ আপনার এখানে ইনভেস্ট করা হয়ে গেলে আর সে টাকা ফেরত পাওয়ার ঝুকি রয়েছে।

ইনভেস্টমেন্ট সাইটে কাজ করার পাশাপাশি যেকোনো অনলাইনে ইনভেস্ট করার আগে অবশ্যই ভেবেচিন্তে তারপরে ইনভেস্ট করুন। কারণ অনলাইনে একবার ভুল জায়গায় ইনভেস্ট করা হয়ে গেলে তা আর ফেরত পাবেন না। 

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করা হয় যেভাবে - how to make money from Youtube

বর্তমানে অনলাইন থেকে ইনকাম করা অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে তার মধ্যে অন্যতম বিষয় হচ্ছে ইউটিউবিং এবং ব্লগিং। এছাড়া অনেক ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস আছে  যেখানে কাজ করার বিনিময়ে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। তবে ফ্রিল্যান্সিং থেকে ইউটিউবিং বা ব্লগিং   এরমধ্যে ভিন্নতা রয়েছে। কারণ এখানে আয়ের উৎস এবং ধরন আলাদা যদিও এখান থেকে উভয় ক্ষেত্রেই অনলাইনের মাধ্যমে ইনকাম করা সম্ভব। তবে ইউটিউবিং বা ব্লগিং এর ক্ষেত্রে আপনার ইনকাম হবে আপনার ব্লগের  ভিজিটর এর উপর নির্ভর করে বা আপনার ইউটিউব এর ভিডিও কত ভিউ হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে। ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্ষেত্রে ইনকাম করতে হবে আপনাকে কোন ক্লায়েন্টের কাজ করে। তবে আমাদের মধ্যে এখনো অনলাইনে সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের ভুল ধারণা রয়ে গিয়েছে। আমরা অনেকেই মনে করি অনলাইন মানে টাকা আর টাকা। কিন্তু বাস্তবতা তা নয়।আপনাকে টাকা পেতে হলে অবশ্যই কাজ জানতে হবে তাহলেই সফলতা আসবে!

আমার অনেকেই ইউটিউব থেকে আয় করার কথা শুনেছি তাদের মনে একটা প্রশ্ন বাসা বাধে যে কেমন করে আয় করা যায় উউটিউব থেকে!যারা  ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করে তাদের আয়ের উৎস কি! আসুন আজ তাহলে জানা যাক কিভাবে আয় আসে ইউটিউব থেকে!

 ইউটিউবারদের প্রধান আয়ের এর উৎস হচ্ছে ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন। ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজ করার ফলে গুগোল ইউটিউব চ্যানেল থাকা ভিডিওর  উপর বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে থাকে। এবং এই প্রদর্শিত বিজ্ঞাপনের থেকে তারা অর্থ প্রদান করে থাকেন। তবে চ্যানেল খুলে ভিডিও আপলোড করলেই তারা চ্যানেলের মনিটাইজেশন চালু করে দেয় না। মনিটাইজেশন চালু করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন শর্ত রয়েছে সকল শর্ত পূরণ হওয়ার পরেই তারা আপনার ইউটিউব চ্যানেলে তাদের বিজ্ঞাপন দেখানো শুরু করবে। ইউটিউব চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখাতে হলে আপনাকে মনিটাইজেশন এর জন্য আবেদন করতে হবে। গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে তারা মূলত বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে থাকে অ্যাডসেন্স হচ্ছে গুগলের একটি বিজ্ঞাপন প্রদর্শনকারী সেবা এখানে তারা বিভিন্ন কোম্পানির থেকে তাদের বিজ্ঞাপন গ্রহণ করে এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং অ্যাপস ও ইউটিউব চ্যানেলে তাদের বিজ্ঞাপন গুলো প্রদর্শন করতে থাকে। এর ফলে তারা বিজ্ঞাপন প্রদানকারি  প্রতিষ্ঠান থেকে তারা যে পরিমাণ অর্থ গ্রহণ করে তার একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ শতকরা হারে আপনাকে তাড়া অর্থ দিয়ে থাকবে।

 আপনি চাইলে এর বাইরে আরও বিভিন্ন উপায়ে আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে ইনকাম করতে পারেন যেমন  বিভিন্ন সাইটের এফিলিয়েট লিংক শেয়ার মাধ্যমে। এমন অনেক সাইট আছে যারা তাদের  এফিলিয়েট লিংক শেয়ার করার ফলে আপনাকে   অর্থ প্রদান করবে। তবে ইউটিউব থেকে আয় করার প্রধান এবং সবচেয়ে বড় ভাইয়ের উৎস হচ্ছে ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন করা। আপনি এত লেট লিংক শেয়ার বা অন্যান্য পায়ের মাধ্যমে সামান্য কিছু অর্থ  আয় করতে পারলেও  আপনাকে সেটি দীর্ঘমেয়াদি আয় আনতে পারবে না।

  তবে ইউটিউব কখনোই  ভিডিওর ভিউ উপর নির্ভর করে আপনাকে অর্থ প্রদান করে না। আপনার সাথে যদি মনিটাইজেশন না থাকে তাহলে আপনার ভিডিও যতই ভিউ হোক না কেন ইউটিউব আপনাকে কোনরূপ অর্থ প্রদান করবে না। আপনার ইউটিউব ভিডিওর মাধ্যমে কতগুলো বিজ্ঞাপন শুরু হলো এবং কতগুলো মানুষ এই বিজ্ঞাপনে ক্লিক করলো তার উপর নির্ভর করে তারা আপনাকে টাকা দিয়ে থাকে।

Brave Browser এ কাজ করে কিভাবে পেমেন্ট নিবেন A to Z

Brave Browser এ কাজ করার জন্য আমি আপনাদের গত পোস্টে বলেছিলাম।অনেকে জয়েন করেছেন।আবার অনেকে করছেন না এটা ভেবে সত্যি কি টাকা দেবে!আচ্ছা বলুন তো পেমেন্ট না দিলে আপনাদের মাঝে শেয়ার করে আমার লাভ কি?কোন লাভ নেই।এটি থেকে আমি গত মাসে ৪০+ ডলার আয় করেছি।কিন্তু আয় আরো বেশি হতো কিন্তু সময় দিতে পারিনাই বলে আয়ের পরিমান টা কম ছিল।যাই হোক আমি আপনাদের আজ দেখাবো কিভাবে আপনারা Brave Browser থেকে আয় করবেন এবং পেমেন্ট নিবেন তার A to Z.
আপনারা যারা এখনো জয়েন করেন নাই তারা এই লিংক থেকে এখনি জয়েন করুন।
⏩উপরের লিংক হতে brave browser টি ডাউনলোড করুন।
⏩লিংকে প্রবেশ করার পরে উপরে তিন ডট অপশন দেখতো পাবেন।সেটিতে ক্লিক করে Content creator সিলেক্ট করুন Sing Up এবং sing in অপশন আসবে।সেখান থেকে Singh up ক্লিক করে ফাকা ঘরে আপনার জিমেইলটি দিন।এবং continue ক্লিক করুন।
⏩আপনার জিমেইল চেক করুন দেখবেন  একটি লিংক পাঠিয়েছে।সেটি ক্লিক করে মেইল ভেরিফাই করে নিন।
⏩ব্রাউজারটি ডাউনলোড হলে ওপেন করুন।brave.com ↔ content creator↔sing in↔যে জিমেইল টি দিয়ে sing up করেছিলেন সেটি দিয়ে sing in করুন।লগিন লিংক আপনার জিমেইলে পাবেন।
বুঝতে কোথায়ও সমস্যা হলে পোস্টটি দেখুন- click hare
লগিন করা হলে আপনার সামনে এরকম একটি পেজ আসবে।

⏩ছবিতে দেখছেন 22.26  BAT এটি আপনার আর্নিং।
⏩Refaral promo stats আপনার রেফারেলে কতজন জয়েন করেছে তার ডিটেলস।
⏩এখানে একটি আপহোল্ড একাউন্ট কানেক্ট করুন।
⏩আপহোল্ড একাউন্ট খুলতে ক্লিক করুন- click hare

⏩Add channel এখানে একটি  ওয়েবসাইট অথবা ইউটিউব চ্যানেল এড করতে হবে।ওয়েব সাইট থাকলেও  ইউটিউব চ্যানেল এড করাই উত্তম কারন এটি আপনার জন্য সহজ হবে।
Refaral link  লেখাতে ক্লিক  করুন।তাহলে আপনার রেফারেল লিংক কপি হয়ে যাবে।
আপনি লিংক টি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া  এবং আপনার বন্ধুদের শেয়ার করার মাধ্যমে তাদের ব্রাউজার টি ডাউনলোড করে ১ মাস ব্যবহার করলেই পাবেন ৫ ডলার প্রতি ডাউনলোডে যা ৪০০-৪৫০ টাকার সমান।
⏩এছাড়া ব্রাউজিং করেও আয় করতে পারবেন।
⏩১ এ  ক্লিক করুন  এবং ২ নং আপশনের জায়গায় creat wallet অপশন আসবে। সেটিতে ক্লিক করে আপনি Show add অন করে দিন।তাহলে মাসের ২৫ তারিখ আপনার এখানে কয়েন জমা হবে।সেটি আপনার মেইন  একাউন্টে টিপস করার মাধ্যমে নিতে পারবেন।
⏩আপনার ব্রেভ একাউন্টের ব্যালেন্স প্রতি মাসের ৯ তারিখ আপনার আপহোল্ড একাউন্টে ট্রান্সফার করে দিবে তারা।
⏩আপ হোল্ড হচ্ছে একটি ক্রিপটোকারেন্সির  ওয়ালেট।সেখান থেকে আপনি কিভাবে টাকা বিকাশে নিবেন তা পরবর্তী টিউটোরিয়ালে দেখিয়ে দেওয়া হবে।

Cryptoxygen এয়ার্ড্রপ থেকে কামিয়ে নিন ১০০+ ডলার পেমেন্ট পাবেন ১০০%

সুপ্রিয় পাঠক আজ আমি আপনাদের মধ্যে এমন একটি এয়ার্ড্রপ শেয়ার করবো যেটি থেকে আপনি ন্যূনতম ১০০+ ডলার আয় করতে পারবেন সামান্য পরিশ্রম করেই।এটি একটি ico এয়ারড্রপ।এবং এয়ার্ড্রপ দ্বিতীয় রাউন্ড চলতেছে।তাহলে কিভাবে কাজ করতে হবে জেনে নেওয়া যাক।
এর নাম হচ্ছে cryptoxygen এয়াড্রপ।
এটি এক্সেন্জ লিস্টেড  তাই পেমেন্ট পাবেন 100% 
এয়ার কোন পদে জয়েন করতে যে সকল জিনিস লাগবে তা হচ্ছে-
(১)একটি টেলেগ্রাম একাউন্ট।
(২)একটি টুইটার একাউন্ট।
(৩)একটি ফেসবুক একাউন্ট।
(৪)একটি ইমেইল এড্রেস।
(৫)একটি ERC20 ওয়ালেট ইথেরিয়াম এড্রেস।
আপনার যদি এসকল কিছু থাকে তাহলে চলুন কাজ শুরু করা যাক।আর যদি না থাকে তো তৈরি করে নিন-
এয়াড্রপ লিংক- CryptoxygenAirdrop
উপরের লিংক হতে টেলেগ্রাম বটে জয়েন করুন জয়েন করুন।

  
বোটে START করে।
-প্রথমে টেলেগ্রাম গ্রুপে জয়েন করুন।
-তাদের টেলেগ্রাম চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।
-তাদের টুইটার গ্রুপে ফলো করুন এবং তাদের লাস্ট 3 টি পোস্টে লাইক দিন।
-লাস্ট তিনটি টুইট রিটুইট করুন।
-তাদের ফেসবুক পেজে ফলো করুন এবং লাইক দিন।

-ফেসবুক পেজে লাস্ট 3 টি পোস্ট লাইক করুন এবং শেয়ার করুন।
-sistemkoin.com এ রেজিস্টার করুন।
সকল স্টেপ কমপ্লিট হলে আপনাকে জিজ্ঞেস করা হবে আপনি উপরের সবগুলো কমপ্লিট করছেন কিনা।
কমপ্লিট করে থাকলে ইয়েস বাটন ক্লিক করুন।
এরপরে ওয়েব সাইটে যে ইমেইল দিয়ে রেজিস্টার করতে চাইবে।এবং ইমেইলটি দিন।
আপনার টুইটার ইউজার নেম চাইবে সেটি দিন।
ফেসবুক একাউন্ট লিংক দিন!
এরপরে ERC20 টেকেন ওয়ালেট ইথেরিয়াম এড্রেস দিন।এবং ক্যাপচা সম্পন্ন করুন।
সকল কাজ সম্পন্ন হলে আপনি আপনার রেফারেল লিংক পেয়ে যাবেন শুধু কপি করে আপনি অন্যদের ইনভাই করুন।

আপনি সবগুলো কাজ কমপ্লিট করলেই পেয়ে যাবেন 270 OXY2

প্রতি ইনভাইটে পাবেন ১২ oxy2 যার মুল্য ২+ ডলার!
এটি sistemkoin লিস্টেট তাই পেমন্ট নিশ্চয়তা ১০০%

ICO বা এয়ারড্রপ কাকে বলে এর থেকে কিভাবে আয় করবেন তার বিস্তারিত

অনলাইন থেকে আয় করার বিভিন্ন ধরনের উপায় রয়েছে এর মধ্যে কতগুলো কাজ সহজ আবার কতগুলো কঠিন।এ সকল কাজের মধ্যে রয়েছে গ্রাফিক্স ডিজাইন,ওয়েব ডেভলপমেন্ট,সিপিএ মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং ইত্যাদি।এগুলো অনলাইন ইনকামের প্রফেশনাল কাজ।আমার অনেকগুলো কাজ আছে যেগুলো প্রোফেশনাল নয় কিন্তু ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আইসিও (ICO) বা এয়ারড্রপের কাজ।


এই কাজটিতে আপনি ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।কোন প্রকার প্রফেশনাল দক্ষতা ছাড়াই।
তাহলে চলুন প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক আইসিও বা এয়ারড্রপ কি?
iCO বা এয়ার ড্রপ হচ্ছে কোন ক্রিপ্টোকারেন্সি যখন মার্কেটে নতুন আসে তখন তারা কিছু পরিমাণ কয়েন সম্পূর্ণ ফ্রিতে দিয়ে থাকে।কিছু ছোট ছোট কাজ এর মাধ্যমে তখন কয়েন আর্ন করা যায়।যেমন,বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় জয়েন করা তাদের পোস্ট শেয়ার করা ইত্যাদির মাধ্যমে।রেফারেলের মাধ্যমে কয়েন আর্ন করা যায়।

Initial Coin Offering (ICO) বা এয়ারড্রপের কাজ করতে প্রথমে আপনার প্রয়োজন পড়বে একটি মাই ইথার ওয়ালেট একাউন্ট।এটি একটি ইথেরিয়াম একাউন্টের মতই কিন্তু ভিন্যতা হচ্ছে এখানে আপনি যে কোন ধরনের টোকেন রিসিভ করতে পারবেন। myEtherwallet একটি ERC20 ইথেরিয়াম ওয়ালেট।এবং এটি জনপ্রিয় একটি ওয়ালেট।মূলত এটির প্রয়োজন পড়বে আপনার কয়েন আর্ন করার পরে কয়েন গুলো রিসিভ করার জন্য।
আপনি যখন বিভিন্ন আইসিও বা এয়ার্ড্রপ এ একাউন্ট খুলবেন তখন আপনাকে এর এড্রেস দিয়ে দিতে হবে।যার ফলে তাদের আইসিও শেষ হলে তারা আপনার এড্রেসে আপনার উপার্জিত কয়েন গুলো সেন্ড করতে পারে।এবং সেই কয়েন গুলো আপনি বিভিন্ন এক্সচেঞ্জ করতে পারেন।

তাহলে বুঝতে পারলেন যে myEtherwallet কতটা গুরুত্বপূর্ণ আইসিওর কাজ করার জন্য।তবে চাইলে নতুন আরো অনেক ERC20 ওয়ালেট রয়েছে সেগুলো আপনারা ব্যবহার করতে পারেন।ইউটিউবে অনেক ভিডিও পাবেন ERC20 একাউন্ট সম্পর্কে।এবং সেগুলো দেখে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিন।

এরপরে কাজের কথায় আসা যাক -
ERC20 wallet  ছাড়াও আপনার যেগুলো জিনিস থাকতে হবে সেগুলো হচ্ছে,
🔥টেলিগ্রাম অ্যাপস ডাউনলোড করুন এবং এটিকে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন।
🔥একটি টুইটার একাউন্ট থাকতে হবে।
🔥একটি ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট।
🔥একটি ফেসবুক একাউন্ট।
🔥একটি reddit একাউন্ট। 
ইত্যাদি এসকল একাউন্ট থাকলে পরে আপনি কাজ শুরু করতে পারবেন। এর পরে আপনি খোঁজ করুন কোথায় ভালো মানের এয়ারড্রপের খোঁজ পাওয়া যায়।আপনি যেখান থেকে এয়ার্ড্রপটির খোঁজ নিবেন এখান থেকে দেখে নিন কি কি কাজ করতে হবে। এবং কোন শর্ত আছে কিনা।
এর পরে আপনি সেখানে দেওয়া লিংকের মাধ্যমে জয়েন করুন।এবং টাস্ক গুলো সব কমপ্লিট করুন। (যেমন,তাদের ফেসবুক পেজে লাইক দেওয়া,পেজের পোস্ট শেয়ার করা,টুইটারে রি-টুইট করা,টেলেগ্রাম গ্রুপে জয়েন করা ইত্যাদি)এবং  ERC20 ইথেরিয়াম এড্রেস দিতে বলবে সেটি সেট করুন।
টাস্ক গুলো কমপ্লিট করলে দেখবেন আপনার একাউন্টে কয়েন গুলো জমা হয়েছে।এখন আপনার কাজ হলো আপনার রেফারেল লিংকের মাধ্যমে অন্যকে জয়েন করানো।আপনার লিংকের মাধ্যমে কেউ জয়েন করলেই আপনি নির্দিষ্ট পরিমান কয়েন পাবেন। এবং যে পরিমাণ কয়েন আর্ন করবেন আইসিও চলাকালীন সময় তা ico শেষ হলে আপনার ERC20 একাউন্টে অটোমেটিক তারা কয়েন পাঠিয়ে দেবে।
এর পরে আপনি coinmarketcap এ গিয়ে দেখবেন কয়েনটি কোন কোন  ট্রেডিং সাইটে এড হয়েছে। এবং সেখান থেকে কয়েনটি এক্সচেঞ্জ করে বিটকয়েনে বা আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী অন্য কোন কয়েনে নিন।
এবং সেগুলো বিক্রির মাধ্যমে সরাসরি টাকা পকেটে নিন। 
দারুন একটি টোকেন যেটি থেকে আপনি আনলিমিটেড আয় করতে পারবেন। এটি প্রতি মাসে পেমেন্ট করে।১০০% রিয়েল কাজ।কাজটি করতে চাইলে এই লিংকে পোস্টটি দেখুন।
  • পরবর্তীতে আইসিও বা এয়ারড্রপ নিয়ে আরো পোস্ট পেতে সাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন।১০০% রিয়েল এয়ারড্রপ অ্যালার্ট দেয়া হবে।

কিভাবে একটি আপহোল্ড একাউন্ট খুলবেন এবং ভেরিফাই করবেন

এর আগে আমি আপনাদের একটি ইনকাম অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন সম্পর্কিত একটি পোস্ট করেছিলাম।যে একটি ব্রাউজার ব্যবহার করে কিভাবে মাসে ২০০০-৩০০০ হাজার টাকা কোন কাজ না করেই ইনকাম করবেন।তো সেটার থেকে পেমেন্ট পাওয়ার জন্য দরকার একটি আপ হোল্ড অ্যাকাউন্ট তৈরি করা এবং সেটা ভেরিফাই করার।বিশেষত আজকের পোস্টটি সেকারণেই করা হয়েছে।কারণ আপনি একটি অাপ হোল্ড একাউন্ট ভেরিফাই করা ছাড়া কোনভাবেই এর থেকে পেমেন্ট পাবেন না।

তবে আপহোল্ড একাউন্ট ভেরিফাই করা খুবই সহজ। তাই ঘাবড়াবার কোন কারণ নেই।
Brave ব্রাউজার এ একাউন্ট করতে এই পোস্টটি ফলো করুন
আপহোল্ড একাউন্ট ভেরিফাই করতে আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স অথবা ন্যাশনাল আইডি কার্ড লাগবে। আপনার নিজের যদি এরকম কোন ডকুমেন্ট না থাকে তাহলে আপনি পরিবারের অন্য কারো আইডি কার্ড বা ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে করতে পারেন।
প্রথমে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে এখানে প্রবেশ করুন।
উপরোক্ত লিংকে প্রবেশ করলে আপনার সামনে এরকম একটি পেজ আসবে।
⭕প্রথম ঘরে আপনার ই-মেইল এড্রেসটি দিন।
⭕দ্বিতীয় ঘরে একটি পাসওয়ার্ড দিন। পাসওয়ার্ডটি অবশ্যই একটু কঠিন ভাবে দিবেন যেমন বড় হাতের, ছোট হাতের এবং সিম্বল ও নম্বরের মিশ্রণে তৈরি করবেন (উদাহরণস্বরূপ Aaaa@1223)।
⭕পরবর্তী করে দেখতে পারেন লেখা আছে ★an individual  ★ an business 
আপনি an individual সিলেক্ট করে দিন।
⭕এরপরে বলতে হয় দেখতে পাবেন আপনার দেশ সিলেক্ট করতে বলেছে আপনি যে দেশের নাগরিক সেই দেশ সিলেক্ট করে দিন।
⭕এরপরে এগ্রি টার্মস এন্ড কন্ডিশন লেখার পাশে টিক চিহ্ন দিন। এবং সাইন আপ বাটনে ক্লিক করুন। আপনার ইমেইলে একটি লিংক চলে যাবে।যেটাতে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনার মেইলটি কনফার্ম করুন।
এর পরে-
আপনার তথ্যগুলো যুক্ত করুন।অবশ্যই ভেরিফাইয়ের জন্য যে আইডি কার্ড ব্যবহার করবেন। সেই আইডি কার্ড অনুযায়ী তথ্য দিন।সমস্ত তথ্য সেভ করা হয়ে গেলে পরে আপনার সামনে একটি ভেরিফিকেশনের একটি অ্যালার্ট দেখাবে এরপরে। সেটিতে ক্লিক করে আপনি আইডি কার্ড সাবমিট করতে চান নাকি ড্রাইভিং লাইসেন্স আপলোড করতে চান তা সিলেক্ট করুন। এর পরের আইডি কার্ডের দুই পিঠের দুইটি ছবি এবং আইডি কার্ড এর মালিকের একটি ছবি লাগবে।এগুলো দেওয়ার সব দেখিয়ে দেয়া হয়েছে আপনি সেই অনুযায়ী সেট করে দেন। তাহলেই দুই এক দিনের ভেতর আপনার একাউন্ট ভেরিফাই হয়ে যাবে।ছবি এবং আইডিকার্ড বা ড্রাইভিং লাইসেন্সের ফটো গুলো ক্লিয়ার করে তোলার চেষ্টা করবেন। তাহলে খুব দ্রুত ভেরিফাই হবে। 
এরপরে আপনি আপহোল্ড একাউন্ট টি আপনার brave  একাউন্টে কানেক্ট করতে প্রথমে আপনার ব্রেব একাউন্ট লগইন করুন। এবং কানেক্ট অ্যাপ হোল্ড এই অপশনে গিয়ে আপনার দেব অ্যাকাউন্টটি লগ ইন করে অথরাইজড করে নিন। অথরাইজড করা হয়ে গেলে কিছুক্ষনের ভিতর আপনার আসল একাউন্ট কানেক্ট হয়ে যাবে।
এর পরে আপনি দেব একাউন্ট এর ভিতরে রেফারেল লিঙ্ক পাবেন সেটি দিয়ে আপনি যতজন জয়েন করাতে পারবেন প্রত্যেক জনের থেকে ৩০ BAT তো কেন করে পাবেন যার বর্তমান মূল্য 12 ডলারের উপরে। এবং প্রতি মাসের ৮ তারিখে আপনার আপ হোল্ড একাউন্টে ট্রান্সফার করে দেয়া হবে।তবে রেফারেল বোনাস পেতে হলে অবশ্যই আপনার রেফারেল এ যে জয়েন করবে তাকে ৩০ দিন এই ব্রাউজারটি ব্যবহার করতে হবে।


কোন কাজ না করে মাসে আয় করুন ২০০০-৩০০০ টাকা

সুপ্রিয় পাঠক আজ আমি আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি একটি দুর্দান্ত ইনকামের পথ। এটি যে কোন মানুষ করতে পারবে এতে আপনাকে কোন প্রকার কাজ করা লাগবে না। এর থেকে কোন কাজ না করেই মাসে ২০০০-৩০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আর আপনি যদি সামান্য কাজ করেন তাহলে আনলিমিটেড ইনকাম করতে পারবেন। চলুন তাহলে কথা না বাড়িয়ে কাজের কথায় আসা যাক,
আমরা সবাই বর্তমানে এন্ড্রয়েড ফোন অথবা পিসি ব্যবহার করে থাকি। আর তাতে আমরা ইন্টারনেট ব্রাউজ  করে থাকি। বর্তমানে আপনিও এই মুহূর্তে ইন্টারনেট ব্রাউজিং করছেন। কারণ আপনি ইন্টারনেট ব্রাউজিং না করলে আমার এই পোস্টটি পড়তে পারতেন না।
আচ্ছা ভাবুন তো আপনি যে ব্রাউজিং করছেন এর জন্য কি আপনার কোন অর্থোপার্জন হচ্ছে?
এ প্রশ্নের উত্তরে আপনি একটাই উত্তর দেবেন, না হচ্ছে না।
তাহলে ভাবুন তো এই ইন্টারনেট ব্রাউজিং যদি হয় আপনার একটি আয় এর উৎস তাহলে কেমন হয়! হ্যাঁ আজ আমি আপনাদের মাঝে এমন একটি অনলাইন ইনকাম টিপস শেয়ার করবো যার মাধ্যমে আপনি শুধুমাত্র একটি ব্রাউজার ব্যবহার করে মাসে 2-3 হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এবং এর পাশাপাশি আপনি যদি একটু কাজ করেন তাহলে এর থেকে আনলিমিটেড ইনকাম করা সম্ভব। এর পাশাপাশি ব্রাউজারটির অনেক সুযোগ সুবিধাও রয়েছে। যেগুলো হলো,
 ব্রাউজার দিয়ে আপনি সম্পূর্ণ বিজ্ঞাপন মুক্তভাবে নেট চালাতে পারবেন।আপনি যে কোন সাইটে প্রবেশ করুন না কেন কোন প্রকার বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হবে না।তবে এটি ছাড়া আরও অনেক ব্রাউজার আছে যেগুলো বিজ্ঞাপন ব্লক করে  রাখে কিন্তু সেগুলো ad-blocker এত শক্তিশালী নয়। এই ব্রাউজারটির ad-blocker ব্যবহার করার ফলে আপনি খুব দ্রুত এবং সুন্দর ব্রাউজিং এক্সপেরিয়েন্স পাবেন। এর পরে রয়েছে এই ব্রাউজারটি আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সম্পূর্ণ নিরাপদ রাখবে এবং অনেক সাইট রয়েছে যেগুলো বিভিন্ন ধরনের ট্র্যাকার ব্যবহার করে থাকে এই সাইটটি সেগুলো ব্লক করে রাখে। যার ফলে কেউ আপনার ব্যক্তিগত তথ্য ট্র্যাক করতে পারবে না। এবং ব্রাউজারটি ইন্টারফেস অনেক সুন্দর এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি। এই সকল সুবিধার পাশাপাশি আপনি পাচ্ছেন ইনকামের সুবিধা এর থেকে বড় সুযোগ আর কি হতে পারে?এই পোস্টটিতে  আমি আপনাদের কয়েকটি পার্ট করে সম্পূর্ণ ভাবে বুঝিয়ে দেব। কারণ প্রায় সকল সাইটে অনলাইন আর্নিং বিষয়ক টিপস গুলো এমন করে দেয় যাতে আপনি তাদের কথায় প্রলুব্ধ হয়ে জয়েন করবেন এতে তারা রেফারেল বোনাস পাবে কিন্তু আপনি কোন প্রকার অর্থ উপার্জন করতে পারবেন না।  তারা এগুলো  করে থাকে শুধু মাত্র ব্যক্তিগত স্বার্থে। এবং তাদের ইনকামের জন্য। তবে আমি আপনাদের সম্পূর্ণ গাইডলাইন দিব। তাহলে চলুন কাজ শুরু করা যাক,
প্রথমে নিচে দেওয়া ছবিতে ক্লিক করে লিঙ্কে প্রবেশ করুন-


লিংক-এখানে ক্লিক করুন
এই লিংকে প্রবেশ করলে আপনার সামনে এরকম একটা ইন্টারফেস চলে আসবে, নিচের ডাউনলোড অপশন দেখতে পাবেন সেখান থেকে ব্রাউজারটি ডাউনলোড করুন এরপরে,
তিন ডটে ক্লিক করার পরে-
এখান থেকে কনটেন্ট ক্রিয়েটর সিলেক্ট করুন। এরপরে আপনার  সামনে ঠিক এরকম একটি ইমেল দ্বারা সাইন আপ করার পর আমার  ফর্ম আসবে। ওখানে আপনার ইমেইল টি দিয়ে সাইন আপ বাটনে ক্লিক করুন।

ক্লিক করার পরে আপনার ইমেইলে একটি মেইল চলে আসবে। মেইলটিতে একটি লিংক থাকবে লিংকে ক্লিক করার মাধ্যমে মেইলটি কনফার্ম করুন। ইমেইল কনফার্ম হলে। আপনার অ্যাকাউন্ট লগিন হবে।
 সেখান থেকে আপনাকে ইউটিউব চ্যানেল বা ওয়েবসাইটে এড করতে হবে।
আপনি ওয়েবসাইট থাকলেও সেটি এড না করে ইউটিউব চ্যানেল এড করুন। এর প্রধান কারণ হচ্ছে ইউটিউব চ্যানেল এড করা সহজ।
একদম নিচে দেখবে এড ওয়েবসাইট অর চ্যালেন লেখা এটি দেখে চ্যানেলটি অ্যাড করতে হবে।অ্যাড  চ্যানেল অপশনে ক্লিক   করলে আপনার সামনে একটি অপশন আসবে যেখানে দেখাবে আপনি ওয়েব সাইট এড করতে চান নাকি ইউটিউব চ্যানেল। আপনি ইউটিউব চ্যানেল সিলেক্ট করুন।


ইউটিউব চ্যানেল সিলেক্ট   করতে আপনার জিমেইল দিন এবং যে ইমেইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলা সেটি ব্রাউজারে লগইন করুন। এছাড়া পেমেন্ট পেতে আপহোল্ড একাউন্ট এড করা লাগে।
 পোস্ট বড় হয়ে যাওয়ার কারণে পরবর্তী পোস্টে আমি আপহোল্ড একটি একাউন্ট তৈরি করা শিখিয়ে দেবো এবং কিভাবে কানেক্ট করবেন তা দেখিয়ে দেবো।  আপনি প্রতিটি রেফারে পাবেন 30 টোকেন যার মূল্য 12 ডলারের বেশি। আর যারা রেফার করতে পারেন না তাদের ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই। যদিও রেফার করতে পারলে আপনি আনলিমিটেড ইনকাম করতে পারবেন। রেফার   ইনকাম করার পদ্ধতি পরবর্তী পোস্টে দেখিয়ে দেয়া হবে। এই অ্যাপটি থেকে আপনি আজীবন ইনকাম করতে পারবেন তাই বিস্তারিত জানতে আমাদের সাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন। কোন সমস্যা হলে কমেন্ট করতে ভুলবেন না।