স্বাভাবিক নিয়মে বা অনলাইনে টাকা ইনকাম করার উপায় অনেক আছে। কিন্তু আপনি কি কখনো ভেবেছেন যে আপনার শখ কে টাকা আয়ের বা উপার্জনের হাতিয়ারে রুপান্তর করা সম্ভব! অনেকেই হয়তো ভাবছেন শখ আর তার থেকে আয়? হুম হতেই পারে আয় তবে তা কি একটি মানুষের সকল চাহিদা মেটানোর জন্য যথেষ্ট? হ্যা অবশ্যই যথেষ্ট হতে পারে! তাহলে আমরা কোন ধরনের শখের কথা বলছি? আর কিছুই না আমরা ফটোগ্রাফি করে বা ছবি বিক্রি করে ইনকাম এর কথাই বলছি। আপনি চাইলে মোবাইল ফটোগ্রাফি করেও আয় করতে পারেন!

ছবি বিক্রি করে আয়
আমাদের অনেকের মাঝেই ফটোগ্রাফার হওয়ার শখ রয়েছে। কিন্তু জীবিকার তাগিদে অনেকেই শখটাকে মাটিচাপা দিয়ে জীবিকা-র তাগিদে ছুটে চলেছে। তবে যাদের নেশা ফটোগ্রাফি করা তারা চাইলে তাদের তোলা ছবির মাধ্যমে একদিকে যেমন নিজেকে একজন প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার হিসেবে তৈরি করতে পারেন। অপরদিকে তাদের জীবিকার উৎস হিসেবেও কাজে লাগাতে পারেন এটিকে।

আমরা মূলত আজ আলোচনা করবো অনলাইনে ছবি বিক্রি করে আয় করার উপায় এবং মাধ্যম সম্পর্কে। অনেকেই অনলাইনে ছবি বিক্রি করে ইনকাম করছে বর্তামান সময়ে। চাইলে আপনিও আপনার তোলা পছন্দের ছবি গুলো বিক্রি করতে পারবেন অনলাইনে।

তবে আমাদের মাঝে একটা প্রশ্ন বাসা বাঁধে যে, ছবি বিক্রি করে কত টাকা আয় করা যায়?  এই প্রশ্নের নির্দিষ্ট উত্তর দেওয়া এক কথায় অসম্ভব!  তবে আপনি যদি ভালো মানের এবং চাহিদা সম্পন্ন ছবি বিক্রির জন্য নির্বাচন করেন। এবং সেরা মানের ছবি হয় তাহলে এর থেকে প্রচুর পরিমান অর্থ উপার্জন করতে পারবেন আপনি এটা নিশ্চিত।


কোয়ালিটি সম্পন্ন ফটোগ্রাফার হওয়ার প্রয়োজনীয়তা কেন:

যেহেতু এই ফটোগ্রাফি ব্রা ছবি বিক্রির জন্য আলাদা একটি প্লাটফ্রম তৈরি হয়েছে। সে ক্ষেত্রে এখানে আপনি ছাড়াও আরও হাজার হাজার মানুষ তাদের তোলা ছবি বিক্রির জন্য আসে। এবং একজন কাস্টমার চায় সবসময় সেরাটা বেছে নিতে। সেক্ষেত্রে আপনার ছবি যদি কোয়ালিটি সম্পন্ন না হয় তাহলে অবশ্যই কাস্টমার কখনোই তা পছন্দ করবে না এবং কিনবে না।

অপরদিকে যেহেতু এখানে আরও হাজার হাজার প্রতিযোগী রয়েছে সেক্ষেত্রে সবাই চায় তাদের কাছের মানুষ সবসময় উন্নত করতে এবং সর্বাধিক ক্রেতাকে আকর্ষিত করতে। আর এটি হচ্ছে নিজেকে প্রফেশনাল হিসেবে গড়ে তোলার প্রধান কারণ। আপনি যদি প্রফেশনাল মানের ছবি উপহার দিতে না পারেন তাহলে আপনার ছবি বিক্রির সম্ভাবনাও সে ক্ষেত্রে কমে যাবে।


ফটোগ্রাফি বিক্রি করে ইনকাম করতে যেসব থাকতে হবে:

ফটোগ্রাফি করে বা ছবি বিক্রি করে আয় করতে হলে আপনাকে সর্বপ্রথম যেটি থাকতে হবে সেটি হচ্ছে ছবি তোলা সম্পর্কে বিস্তারিত জ্ঞান। কারণ গ্রাহক কোন ধরনের ছবি চায় এবং তাদের পছন্দ অনুযায়ী আপনি ছবি যদি না তুলতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনার ছবি কেউ কিনবে না।

এ কারণে ফটোগ্রাফি সম্পর্কে বিস্তারিত জ্ঞান অর্জন করতে হবে সবার আগে। আপনি চাইলে ফটোগ্রাফির উপর বিভিন্ন কোর্স করতে পারেন। এবং কিভাবে ভাল মানের ছবি তোলা যায় এ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করার মাধ্যমে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারেন।

এরপরে আপনার দরকার হবে একটি ভালো মানের ক্যামেরা। কারণ নিখুঁত এবং হাই রেজুলেশনের ছবি তুলতে ভালো মানের ক্যামেরা এর কোন বিকল্প নেই। আপনি চাইলে আপনার মোবাইল ফোনে থাকা ক্যামেরার মাধ্যমে ছবি তুলতে পারেন। কারণ বর্তমান সময়ে স্মার্টফোন গুলোতে অনেক ভালো মানের ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়।

এছাড়াও আপনাকে ফটো এডিটিং ইত্যাদি সম্পর্কে ভালো জ্ঞান অর্জন করতে হবে। ফটো এডিটিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার তোলা ছবিকে আরও প্রাণবন্ত করে তুলতে পারবেন। ছবি এডিট করার জন্য আপনি বিভিন্ন ফটো এডিটর অ্যাপ এর সাহায্য নিতে পারেন। এ কারণে আপনাকে শিখতে হবে ফটো এডিটিং।


কারা কিনবে আপনার ছবি?

কোন ধরনের ছবি তুলবেন এবং কোন ধরনের ফটোগ্রাফির চাহিদা বেশি এটি আপনি জানতে পারবেন আপনার ছবি কারা কিনবে সেটি খুঁজে বের করার মাধ্যমে। বর্তমান সময়ে বিভিন্ন কোম্পানি, বিজ্ঞাপন সংস্থা ইত্যাদির মানুষজন ফটো বা ছবি কিনে থাকেন।

তাদের এগুলো কেনার পেছনে সবচাইতে বড় কারণ হচ্ছে কপিরাইট আইন। আপনি যদি গুগল বা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে খোঁজ করার মাধ্যমে ছবি খুঁজে সেটি ব্যবহার করেন তাহলে আপনি কপিরাইট আইনের আওতায় সাজাপ্রাপ্ত হতে পারেন। এ কারণেই মূলত এ সকল সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে কোম্পানি গুলো টাকা দিয়ে ছবি কিনে থাকে।


কিভাবে ফটোগ্রাফি বা ছবি অনলাইনে বিক্রি করবেন:

হকের চাহিদা অনুযায়ী ছবি তোলা এবং তার সকল কাজ সম্পন্ন করার পরে যে কাজটি বাকি থাকে সেটি হচ্ছে এই সকল ছবি বিক্রি করা। অনলাইন আপনি মোট দুইটি উপায়ে আপনার তোলা ছবি বিক্রি করতে পারেন। এগুলো হলো-

  1. ছবি বিক্রি জন্য নিজস্ব ওয়েব সাইট তৈরি করে।
  2. বিভিন্ন স্টক ইমেজ ওয়েবসাইটে ছবি বিক্রির জন্য অ্যাকাউন্ট তৈরি করে।


১: নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরীর মাধ্যমে ছবি বিক্রি:

আপনি চাইলে আপনার তোলা ছবিগুলো বিক্রির জন্য নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে সর্ব প্রথমে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে যেখানে বিভিন্ন ক্রেতারা এসে আপনার তোলা ছবিগুলো কিনবে।

তবে নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরীর মাধ্যমে ছবি বিকৃত করে কতগুলো জটিলতা কাজ করে এর মধ্যে প্রধান সমস্যা হচ্ছে ছবির দুইটা ক্রেতা বের করা। তাই আপনাকে অবশ্যই ছবির জন্য এটা খুঁজে বের করতে হবে।

আর বেথা পেতে হলে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক জেনারেট করতে হবে এবং সর্বোপরি সেসকল ট্রাফিক ক্রেতায় রূপান্তর করতে হবে। আমরা সকলেই জানি বর্তমান সময়ে অনলাইন জগত খুবেই প্রতিযোগিতা মূলক। এই কারণেই আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক জেনারেট করা এবং ছবির ক্রেতা পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।

তবে কষ্টসাধ্য হলেও নিজস্ব ওয়েবসাইটের সবচাইতে বড় সুবিধা হচ্ছে আপনাকে বিক্রিত ছবির মুল্য হতে কাউকে কোন ভাগ দিতে হবে না।

আর সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ওয়েবসাইটের ট্রাফিক জেনারেট এবং ক্রেতা সৃষ্টির জন্য আপনাকে প্রচুর পরিমানে সময় দিতে হবে যার কারণে ফটোগ্রাফির দিকে আপনার মনোযোগ এ ব্যাঘাত ঘটতে পারে।


২: স্টক ইমেজ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ছবি বিক্রি করা-

আপনি যদি স্টক ইমেজ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ছবি বিক্রি করতে চান তাহলে আপনাকে সর্ব প্রথমে সেই ওয়েবসাইটে একটি অ্যাকাউন্ট করতে হবে। এবং একাউন্ট করার পরে আপনাকে শুধুমাত্র যে সকল ক্যাটাগরির ছবি আপনি বিক্রি করতে চান সেই মোতাবেক ছবি আপলোড করলেই আপনার কাজ শেষ। ছবি বিক্রি করা এবং সেটা খোঁজার কাজ সম্পূর্ণ করবে স্টক ইমেজ ওয়েবসাইট এর কর্তৃপক্ষগন। তাই ছবি বিক্রির জন্য আপনাকে কোন আলাদা কাজ করতে হবে না।

এক্ষেত্রে আপনার বিক্রিত ছবির উপর সার্ভিস চার্জ হিসেবে একটি অংশ তারা নিয়ে নেবে। সেটি হতে পারে ১০ থেকে ৫০% পর্যন্ত। এবং বাকিটা আপনাকে তারা দিয়ে দেবে।


কয়েকটি জনপ্রিয় স্টক ইমেজ এর ওয়েবসাইট:


কিভাবে টাকা হাতে পাবেন:

আপনার বিক্রি করা ফটোগ্রাফি থেকে যে পরিমাণ অর্থ আয় হবে তা আপনি পেপাল এবং ব্যাংকের মাধ্যমে তুলতে পারবেন।

নবীনতর পূর্বতন
close