বিটকয়েন হলো সকলে কৌতুহলের একটি নাম।বিটকয়েন কি ও কেন ব্যাবহার করা হয়। এই একটি প্রশ্ন সকলের মনেই জাগে।কারন একটি দেশে তো সরকার কতৃক নিয়ন্ত্রিত মুদ্রা থাকেই।তাহলে কেন বিটকয়েন তৈরি করা হলো বা কে তৈরি করলো এটি।বিটকয়েন কোন দেশের মুদ্রা?এটি কি বাংলাদেশে বৈধ।আসলে এটি কোন দেশের মুদ্রা নয়।এটি একটি ডিজিটাল মুদ্রা।তাহলে প্রশ্ন ওঠে ডিজিটাল মুদ্রা কি! এটি একটি ডিজিটাল লেনদেনের মাধ্যম।যা শুধু মাত্র ডিজিটাল ভাবেই করা সম্ভব। অর্থাৎ সাধারণ মুদ্রার মত এটি লেনদেন করা সম্ভব নয়।আর এই সকল প্রশ্নের উত্তর মিলবে এই আর্টিকেলটিতে।
বিটকয়েন হচ্ছে একটি ভার্চুয়াল  মুদ্রা এটি ধরা  যায় না ছোঁয়া যায় না। শুধু হিসাব রাখা যায় ভার্চুয়াল মুদ্রা বিটকয়েনের।সতোশি নাকামোতো নামে আজ্ঞাত কোন ব্যাক্তি প্রথম সবার মাঝে এর ধারনা প্রচার করেন এবং এটি চালু করেন।এর বিশেষ  সুবিধা হলো প্রাইভেসি। একদিকে যিনি লেনদেন করছেন, গোপন থাকছে তার পরিচয়। তার বদলে ব্যবহার হয় সঙ্কেতলিপি।এর প্রতিটি লেনদেন সম্পন্ন হয়ে থাকে ক্রিপ্টোগ্রাফির (cryptography) মাধ্যমে।এটি সম্পুর্ন ভিন্ন প্রযুক্তি। আর তাতেই পশ্চিমা বিশ্বে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ডিজিটাল কারেন্সি বিটকয়েন।

যদিও পৃথিবীর কোন দেশের স্বীকৃত বা বৈধ মুদ্রা নয় এই বিটকয়েন।তেমনি বাংলাদেশেও এই মুদ্রা অবৈধ। কিন্তু তারপরও হচ্ছে লেনদেন।বর্তমানে বাইরের দেশে অনেক জায়গায় এটির মাধ্যমে লেনদেন ও করা হচ্ছে। এবং সামান্য কিছু বিধিনিষেধের উপর নির্ভর করে অনেক দেশ এটির বৈধতাও দিচ্ছে।এবং সম্প্রতিক সময়ের অনুসন্ধানে জানা গেছে, বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পেজের মাধ্যমে এ লেনদেনের প্রচার করছে বেশ কয়েকটি সংঘবদ্ধ চক্র।যারা এই বিটকয়েন যদিও ২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশে বিটকয়েন লেনদেন নিষিদ্ধ। হওয়া সত্যেও তারা কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এবং অন্য দেশে এর উপর তৈরি হয়েছে ট্রেডিং প্লাটফর্ম। এছাড়া এটি আয়েরও রয়েছে বিভিন্ন উপায়। বিভিন্ন মাইক্রো ওয়ার্ক সাইট বিটকয়েনর মাধ্যমে পেমেন্ট করে থাকে।এছাড়াও বিভিন্ন পিটিসি ইত্যাদি সাইটের থেকেও বিটকয়েন আয় করা সম্ভব। এছাড়া প্রতিনিয়ত বিটকয়েনর মত বিভিন্ন ক্রিপ্টোকারেন্সির(Cryptocurrency)  মুদ্রা চালু হচ্ছে।

এটির লে

 অর্থ লেনদেন করতে দেশে কার্যরত আছে বিভিন্ন ব্যাংকের ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড, মোবাইল ব্যাংকিং মাধ্যম বিকাশ ও রকেট।বাংলাদেশে এটি অবৈধ  তারপরও এই ভার্চুয়াল মুদ্রা লেনদেন চলছে, আর এতে বড় অঙ্কের আর্থিক ক্ষতির শঙ্কা করছেন বাংলাদেশের তথ্য প্রযুক্তিবিদরা। তারা বলছেন,বিটকয়েন সম্পর্কে সাবধান হতে হবে,এবং এর লেনদেনে সতর্ক হতে হবে।এবং বিটকয়েন ব্যাবহার পরিহার করতে হবে। ইতোমধ্যে কয়েক দফায় বিটকয়েন লেনদেন নিয়ে সতর্কতা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।এবং অনেক জনকে এর জন্য গ্রেফতার ও করেছে বাংলাদেশ পুলিশ।


নবীনতর পূর্বতন
close