বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে আয় করা বর্তমানে একটি নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।ফ্রিল্যান্সিং(Frelancing) করে কোটিপতি হয়েছেন এরকম লোকের অভাব নেই বর্তমান বাংলাদেশে।ফ্রিল্যান্সিং কে ক্যারিয়ার হিসেবে নিয়েছেন এরকম লোক আমাদের দেশে সাড়ে ছয় লাখেরও বেশি।আবার অন্যদিকে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সমূহ ভূয়া মনে করা মানুষের সংখ্যাও আমাদের দেশে একদম কম নয়।আর এদের কারনেই অনেকটা পিছিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররা।কারন তারা একদিকে যেমন কোন প্রথম শুরু করা ফ্রিল্যান্সার এর ব্যার্থতাকে পুঁজি করে তাদের কানের কাছে মাছির মত ঘ্যান ঘ্যান করে তাদের মনোবল নষ্ট করে দেয়।তেমনই তাদের পরিবারকে ফ্রিল্যান্সিং পেশার বিরুদ্ধে যাওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে প্ররোচিত করে।আর একারনেই অনেক যুবক যুবতীরা ফ্রিল্যান্সিং স্কিল থাকা স্বত্বেও পিছিয়ে যাচ্ছে।কারন মনোবল হলো সফলতার অন্যতম চাবিকাঠি।
ফ্রিল্যান্সিং জব
জনপ্রিয় কয়েকটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট
যাইহোক অনেক কথা বলে ফেললাম,এবার আসল কথায় আসি!আজ আমরা কয়েকটি জনপ্রিয় ও বিশ্বস্ত ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস সাইট নিয়ে কথা বলবো।যেখানে কাজ করার মত করে নিজেকে দক্ষ করতে পারলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং কে পেশা হিসেবে গ্রহণ করতে পারবেন।কারন বর্তমানে লোকাল কাজগুলোর ভ্যালু নস্ট করে দিয়েছে আমাদের দেশের কিছু মানুষ তাদের প্রতারণার মাধ্যমে।লোকাল ভাবে কাজ করিয়ে টাকা না দেওয়া।আবার টাকা নিয়ে কাজ না করা লোকের সংখ্যা প্রচুব পরিমানে। তারা দক্ষতা অর্জন করেছি ঠিকই তাবে তা কাজের নয় চুরির জন্য।কথা গুলো বলতে কস্ট হচ্ছে তবুও বললাম।

আপওয়ার্ক.কম( upwork.com) :বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোর মধ্যে আপওয়ার্ক ডটকম সবার শীর্ষে অবস্থান করছে।আপওয়ার্ক ডটকম এ কাজ করা একজন ফ্রিল্যান্সার নিজেকে প্রতিষ্ঠিত বলে দাবি করতে পারে।এখানে কাজ করতে হলে আপনাকে একটি একাউন্ট তৈরি করতে হবে।এবং ১০০% ভেরিফাই করে নিতে হবে। এছাড়া আপনার কাজের দক্ষতা,পূর্ব অভিজ্ঞতা,কোন প্রাতিষ্ঠানিক সার্টিফিকেট(যদি থাকে) তাহলে তা যুক্ত করতে হবে।সকলেই চাইবে টাকা খরচ করে কাজ করাতে হলে কোন দক্ষতা সম্পন্ন ব্যাক্তিকে দিয়েই করাতে।
এখানে যার কাজ করায় তাদেরকে বায়ার এবং যারা কাজ করেন তাদেরকে সেলার বলা হয়ে থাকে।বায়ার তাদের জব পোস্ট করে এবং এবং কোন ফ্রিল্যান্সার নিজেকে সেই কাজের জন্য দক্ষ মনে করলে বিড করেন।এবং বায়ার যদি উক্ত ফ্রিল্যান্সারকে যোগ্য মনে করে তাহলে তাকে কাজের জন্য হায়ার করেন।এখানে কাজের মূল্য মূলত দুই ভাবে হিসাব করা হয়।ফিক্সড রেট এবং আওয়ারলি রেইটে।এবং প্রতি কাজের সর্বনিম্ন মূল্য ৫ ডলার।একজন বায়ার কোন ফ্রিল্যান্সারকে দিয়ে কাজ করিয়ে তার পছন্দ ও সন্তুষ্টি অনুযায়ী রেটিং দিয়ে থাকেন।যা একজন সেলারের অভিজ্ঞতার সার্টিফিকেট হিসেবে কাজ করে।কারন পরবর্তীতে এটি আপনাকে কাজ পাওয়ার জন্য সহয়তা করবে।


ফাইবার ডটকম (fiverr.com):ফাইবার ডটকম নামটির সাথে ফাইভ কথাটি কেমন সম্পর্ক যুক্ত মনে হয়!হ্যা এটাই সত্যি কারন এই Fiver মার্কেট প্লেস মূলত তৈরি হয়েছিল ৫ ডলারের কাজের জন্য।আর এর উপর ভিত্তি করেই এর নামকরন করা হয় ফইবার.কম(fiver.com).এটি প্রতিষ্ঠিত হয় ২০১০ সালে।লেখা, অনুবাদ, গ্রাফিক ডিজাইন, ভিডিও সম্পাদনা এবং প্রোগ্রামিং এর উপর ফ্রিল্যান্সিং কাজের জন্য এটি তৈরি করা হয়। এখানে প্রতিটি সেবা প্যাকেজ আকারে বিক্রি করা হয়।এবং এইগুলোকে গিগ বলা হয়ে থাকে। এখানে একাউন্ট তৈরি করে তাতে সম্পুর্ন তথ্য যুক্ত করে তারপরেই আপনি গিগ সেল করতে পারবেন।


ফ্রিল্যান্সার ডটকম(freelancer.com):এটিও একটি অন্যতম ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস।এখানে প্রচুর পরিমাণ ফ্রিল্যান্সিং কাজ হয়ে থাকে।এখানে আপনি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ওয়েব ডিজাইন,গ্রাফিক্স ডিজাইন,SEO,কন্টেন্ট রাইটিং ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের কাজ রয়েছে এই জনপ্রিয় মার্কেট প্লেসে।এবং এখানে যুক্ত হওয়ার জন্য ও আপনাকে নিবন্ধনের মাধ্যমে কাজ করতে হবে।

পিপলস পার আওয়ার(.peopleperhour.com): এটি নতুন ফ্রিল্যান্সার দের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মার্কেটপ্লেস।এখানে নতুন যারা তারা ছোট ছোট কাজের মাধ্যমে আয় করতে পারেন।এখানে নিবন্ধন করার মাধ্যমে আপনি কাজে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।এবং এখানে কাজ করে আয়ও করতে পারবেন।এটি থেকে কাজ পাওয়া অন্যান্য মার্কেটপ্লেস থেকে অনেক সহজ।তাই কাজ করে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা বৃদ্ধি করতে পারবেন।

কাজকি.কম(kajkey.com):এটি বাংলাদেশি একটি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস।এখানে কাজ করতে পারবেন বাংলাতেই এবং বাংলাদেশের বায়ারের কাজ করা যায় এখান থেকে।পেমেন্ট মেথডও সহজ আপনার মাস্টার কার্ড দরকার হবেনা এখান থেকে পেমেন্ট নিতে।শুধু মাত্র বিকাশের মাধ্যমেই আয় করতে পারবেন।

নবীনতর পূর্বতন