মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় বিহারের সাঁওতাল পরগনার দুমকায় ১৯০৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৯এ মে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক বাড়ি ঢাকার বিক্রমপুরে। মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পিতার নাম হরিহর বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মাতার নাম নীরদাসুন্দরী দেবী। তাঁর পিতৃপ্রদত্ত নাম প্রবােধকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। ডাকনাম মানিক।
বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার বিভিন্ন স্কুল ও কলেজে তিনি পড়াশােনা করেন। মাত্র আটচল্লিশ বছর তিনি বেঁচে ছিলেন। কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজে বিএসসি পড়ার সময়ে মাত্র বিশ বছর বয়সে বন্ধুদের সঙ্গে বাজি ধরে তিনি প্রথম গল্প “অতসীমামী” লিখে খ্যাতি অর্জন করেন। তারপর জীবনের বাকি আটাশ বছর নিরবচ্ছিন্ন ভাবে লিখে গেছেন। মাঝে বছর তিনেক মাত্র তিনি চাকরি ও ব্যবসায়িক কাজে নিজেকে জড়ালেও বাকি পুরাে সময়টাই তিনি সার্বক্ষণিকভাবে সাহিত্যসেবায় নিয়ােজিত ছিলেন।

উপন্যাস ও ছােটগল্প লেখক হিসেবে মানিক বাংলা সাহিত্যে খ্যাতিমান। অল্প সময়েই তিনি সৃষ্টি করেছেন উনচল্লিশটি উপন্যাস ও প্রায় তিনশাে ছােটগল্প। সেই সঙ্গে লিখেছেন কিছু কবিতা, নাটক, প্রবন্ধ ও ডায়েরি । বিজ্ঞানমনস্ক এই লেখক মানুষের মনােজগৎ তথা অন্তৰ্জীবনের রূপকার হিসেবে সার্থকতা দেখিয়েছেন। একই সঙ্গে সমাজবাস্তবতার শিল্পী হিসেবেও স্বাক্ষর রেখেছেন। জননী’, ‘দিবারাত্রির কাব্য’, ‘পদ্মানদীর মাঝি’, ‘পুতুলনাচের ইতিকথা’, ‘চিহ্ন প্রভৃতি তাঁর বিখ্যাত উপন্যাস। তাঁর বিখ্যাত ছােটগল্পের মধ্যে উল্লেখযােগ্য : প্রাগৈতিহাসিক’, ‘সরীসৃপ', 'সমুদ্রের
স্বাদ’, ‘কুষ্ঠরােগীর বৌ’, ‘টিকটিকি', ‘হলুদ পােড়া’, ‘আজ কাল পরশুর গল্প', 'হারানের নাতজামাই’, ‘ছােট
বকুলপুরের যাত্রী' প্রভৃতি।

কলকাতায় ১৯৫৬ খ্রিষ্টাব্দের তেসরা ডিসেম্বর তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

��একটি মন্তব্য করুন��

নবীনতর পূর্বতন