আপনি কি জানেন আজকাল কথা বলেও টাকা ইনকাম করা যায়। আপনিও চাইলে কথা বলেই ইনকাম করতে পারবেন। মূলত এই পেশার নাম ভয়েস ওভার আর্টিস্ট (Voice Over Artist) । হ্যা আপনার কন্ঠ যদি ভালো হয় তবে আপনি কথা বলেও টাকা রোজগার করতে পারবেন। বর্তমান সময়ে ভয়েস ওভার এক্টর (Voice Over Actor) দের অনলাইনে কাজ করার সুযোগ তৈরি হয়েছে আপওয়ার্ক, ফাইভার, ফ্রিলান্সার ডটকম এর মতো অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্ম গুলোর মাধ্যমে। এবং আপনি হয়তো ভাবছেন এই সেক্টরে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে। তবে এটুকু জেনে অবাক হবেন যে আপনি যদি নিজেকে একজন ভয়েস ওভার আর্টিস্ট হিসেবে তৈরি করতে পারেন তাহলে আপনার আয় করা বা কাজ করা নিয়ে ভাবতে হবেনা।  আপনি যথেষ্ট কাজ পাবেন এই সেক্টরে। এবং আয়ের পরিমান ও যথেষ্ট!

একটু অপেক্ষা করুন সম্পূর্ণ বুঝিয়ে বলছি, ইন্টারনেট এর বিস্তারের ফলে আজকাল সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ছোট বড় সবাই ইন্টরনেট ব্যবহার করছে ফলে আজকাল ইন্টারনেটকে ঘিরেই তৈরি হচ্ছে নানা ব্যবস্যা বানিজ্য আরো কতো কি!
ইন্টারনেট এ বেশিরভাগ মানুষই বিনোদন নিতে আসে বা কিছু শিখতে আসে আর ইন্টারনেট এর একটা বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে ভিডিও কন্টেন্ট। অনেকেই তাদের ব্যবসার প্রসার এর জন্য ভিডিও মার্কেটিং করে থাকে। মানে খুব সুন্দর একটা ভিডিও তৈরি করে সেটার মাধ্যমে তাদের ব্যবস্যাকে প্রমোট করে থাকে। একটা সুন্দর ভিডিও তৈরি করার জন্য যেমন দরকার সুন্দর ভিডিও ফুটেজ এর তেমনি দরকার সুন্দর একটা ভয়েস এর।

এছাড়াও বিভিন্ন 3D, 2D এনিমেশন বা কার্টুন এর জন্য দরকার হয় ব্যাগ্রাউন্ড সাউন্ড এর। আর এই কাজ গুলো গুলো করে থাকে একজন ভয়েস ওভার আর্টিস্ট। 

হ্যা একটা ভিডিও কন্টেন্ট কোয়ালিটি ভালো হওয়ার জন্য ব্যগরাউন্ড মিউজিক ও সুন্দর ভয়েস খুব গুরুত্বপূর্ণ। সবার ভয়েস সুন্দর হয় না তাই অনেকেই যাদের ভয়েস সুন্দর তাদেরকে তাদের ভিডিওতে ভয়েস দেওয়ার জন্য হায়ার করে থাকে।

বায়ার আপনাকে একটা স্কিপ্ট দিবে আপনাকে শুধু ওই স্কিপ্ট টা পড়ে পড়ে রেকর্ড করে বায়ারকে দিতে হবে। আর এই ধরনের কাজ যারা করে থাকে তাদের বলা হয় ভয়েস ওভার আর্টিস্ট।

একজন ভয়েস ওভার আর্টিস্ট তার প্রতি মিনিট ভয়েস এর জন্য ৩০ থেকে ৬০ টাকা আবদি চার্জ করে থাকে এইটা বললাম আমি লোকাল মার্কেট প্লেস এর কথা। আর আপনি যদি ফাইবার আপওয়ার্ক সহ আন্যান্য ইন্টরন্যশনাল মার্কেট কথা বলেন তাহলে এখানে প্রতিমিনিট ভয়েস এর জন্য একজন ভয়েস ওভার আর্টিস্ট ৫ বলার থেকে ৫০ ডলার আবদি চার্জ করে থাকে।

আপনার যদি কন্ঠ ভালো থাকে তাহলে আপনি ও পারেন ভয়েস ওভার আর্টিস্ট হিসাবে কাজ করতে পারেন।এর জন্য আপনার একটি মাইক্রোফোন দরকার হবে বাজারে আনেক ধরনের মাইক্রোফোন পাওয়া যায় আপনি খুঁজলে ২০০ টাকা থেকে ১০০০ টাকারও মাইক্রোফোন খুঁজে পাবেন। তবে আপনি ৭০০ বা ৮০০ টাকায় মোটামুটি মানের মাইক্রোফোন কিনতে পারবেন। তা দিয়ে চাইলে আপনি মোটামুটি মানের ভয়েস রেকর্ড করতে পারবেন। ভয়েসটি রেকর্ড করার পর আপনি সিম্পলি মোবাইল দিয়ে ভয়েসটি এডিট করে বায়ারকে দিয়ে দিতে পারেন।

এবং প্রফেশনাল কাজের জন্য তৈরি করে নিতে পারেন নিজের স্টুডিও এবং ভালো মানের ভয়েস তৈরি করে প্রচুর পরিমান আয় করতে পারবেন ইন্টারনেট এর সাহায্যে ঘরে বসেই!
নবীনতর পূর্বতন
close