শীতে পা ফাটা একটি কমন সমস্যা।অনেকেই জানতে চায় পা ফাটার চিকিৎসা কি।তবে আপনি চাইলে শীতে পা ফাটা থেকে মুক্তির উপায় ঘরোয়া উপায়ে করতে পারেন।এর জন্য আপনাকে কোন বাড়তি চিকিৎসা না করলেও চলবে!শীতে পা ফাটার কারণ হলো আমাদের ত্বক শীতে আদ্রতাশূন্য হওয়ার ফলে ত্বকের উপর প্রভাব পরে।
আমরা ত্বকের উপর অধিক যত্নশীল হলেও পায়ের দিকে খেয়াল করতে ভুলে যাই!

পা ফাটা বন্ধের উপায় সম্পর্কে আমাদের সকলেরই জানার আগ্রহ কম না।কারন শীতে সকলেরই পা ফাটে।আর পা ফাটা একদিকে যেমন পায়ের সৌন্দর্য নষ্ট করে তেমনি ফাটা পায়ে হয় অসহ্য যন্ত্রনা।মাঝে মাঝে রক্ত পড়ে ফাটা যায়গা দিয়ে। তাই আসুন জেনে নেই শীতে পা ফাটা রোধে করনীয় এবং কিছু ঘরোয়া টিপস-

লেবুর রস এবং ভ্যাসলিন-ভ্যাসলিন এবং লেবুর রস পা ফাটা রোধে দারুন কার্যকর একটি সমাধান।আপনার যাদি প্রচন্ড পা ফাটা থাকে তাহলে আপনি কিছু পরিমান ভ্যাসলিনের সাথে কয়েক ফোটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন।এবং এরপরে তা আপনার পায়ের ফাটা অংশে লাগান সারা রাত লাগিয়ে রাখুন এবং সকালে উঠে নিজেই দেখুন তফাত টা!

তিলের তেল-আমরা অনেকেই পা ফাটা রোধ করার জন্য পা ফাটার ঔষধ খুজে থাকি।তবে আপনি তিলের তেলকে ঔষধ মনে করতে পারেন। কেননা তিলের তেল যদি আপনি আপনার ফাটা পায়ে নিয়মিত লাগান তাহলে এর সুফল আপনি নিজেই দেখতে পাবেন।


গোলাপজল এবং গ্লিসারিনঃগোলাপজল এবং গ্লিসারিন একটা ছোট পাত্রে মিশান এবং এটি সারা রাত পায়ে মাখিয়ে রাখুন দেখবেন পায়ের ফাটা রোধ করে এবং ব্যাথাও দুর হয়ে যাবে!

মধু এবং গরম পানিঃএক কাপ পরিমাণ মধু এবং আধা বলতি গরম পানি নিন।এবং গরম পানিতে মধু মিশিয়ে নিন এবং তার মধ্যে পা আধা ঘণ্টা ধরে রাখতে হবে তাহলে পায়ে ফাটা দ্রুত সেরে যাবে।

লবন এবং গরম পানিঃআধা বালতি গরম পানিতে ২ চামচ লবন মিশিয়ে নিন। এবং এত আধা ঘণ্টা ধরে পা ভিজিয়ে রেখে দিন।দেখবেন তাহলে পা ফাটা অনেকাংশে সেরে যাবে।

কলাঃপা ফাটার ঘরোয়া সমাধান পেতে আপনিও ব্যাবহার করতে পারেন কলা!নিশ্চই অবাক হয়েছেন তাইনা?অবাক হওয়ারই কথা!তবে আপনি শুনলে অবাক হবেন যে কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ত্বক ময়েশ্চারাইজিং করার ক্ষমতা।আপনি একটি কলা নিন এবং এটি ভালভাবে ব্লেন্ড করে নিন।এর পরে ফাটা পা ভালো ভাবে পরিষ্কার করে এর পরে ফাটা পায়ে লাগান।দেখবেন খুব শিঘ্রই পা ফাটা সেরে যাবে!

উপরে আলোচিত এ সকল টিপস মানলে আপনার পা ফাটা সেরে যাবে এবং নতুন করে পা ফাটা ও শুরু করবেনা!

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন