বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

ভাবসম্প্রসারন: গ্রন্থগত বিদ্যা আর পরহস্তে ধন।
নহে বিদ্যা নহে ধন হলে প্রয়ােজন।
গ্রন্থগত বিদ্যা আর পরহস্তে ধন

মুলভাব ; বিদ্যাকে আত্মস্থ না করা যেমন মূল্যহীন তেমনি নিজের ধন অন্যের কাছে থাকাও অর্থহীন। কেননা উভয় ক্ষেত্রেই অর্জনের ফল নিজের কাছে নেই। সুতরাং প্রয়ােজনের মুহূর্তে তা কোনাে কাজেই আসে না।

ভাব-সম্প্রসারণ : মানবজীবনে বিদ্যা এবং ধন উভয়েরই প্রয়ােজনীয়তা অপরিসীম। বিদ্যার অনির্বাণ দীপ শিখা মানুষকে নিয়ে যায় আলাে অভিসারে, নিয়ে যায় জ্ঞানের বিস্তীর্ণ ভবনে। জ্ঞান চক্ষুর উন্মেষ ব্যতীত মানুষ কখনাে প্রকৃত মানুষ হতে পারে না। বিদ্যার আলাে ব্যতীত তার ভেতরের মানুষটি জেগে উঠতে পারে না। সুতরাং বিদ্যা নিঃসন্দেহে মানবজীবনের এক অমূল্য সম্পদ। অপর পক্ষে মানবজীবনে ধনের প্রয়ােজনীয়তাও অপরিসীম। পার্থিব সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য ও যশ প্রতিপত্তি লাভের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ধনসম্পদ । বিদ্যার্জনের ক্ষেত্রে যেমন কঠোর পরিশ্রম ও সাধনার প্রয়ােজন, ধনার্জনের ক্ষেত্রেও তেমনি কঠোর পরিশ্রম ও সাধনার প্রয়ােজন। গ্রন্থ হচ্ছে জ্ঞানের আকর এবং সভ্যতার ধারক ও বাহক। গ্রন্থের মধ্যে সতি জ্ঞানকে আয়ত্ত করে নিজের কল্যাণে নিয়ােগ করতে পারাই হচ্ছে বিদ্যাচর্চার সার্থকতা।

গ্রন্থগত বিদ্যা লাভ করে পরীক্ষার বৈতরণী পার হওয়া গেলেও কিংবা বড় বড় ডিগ্রি লাভ করা গেলেও বাস্তবজীবনে তা কাজে লাগে না। আর যে বিদ্যা বাত্মজীবনে কাজে লাগে না, সে বিদ্যা একান্ত নিরর্থক, নিস্ফল। কবি যথার্থই বলেছেন, “বিদ্যার সাথে সম্পর্কহীন জীবন অন্ধ এবং জীবনের সাথে সম্পর্কহীন বিদ্যা পঙ্গ।” গ্রন্থগত বিদ্যার মতাে পরের হাতে থাকা ধনও প্রয়ােজনে অকেজো। তার কারণ মানুষ অসীম পরিশ্রম ও ত্যাগ-তিতিক্ষার দ্বারা ধন সম্পদ অর্জন করে নিজের কল্যাণের ও সুখ স্বাচ্ছন্দ্যের মহান প্রত্যাশায়। কিন্তু নিজের অর্জিত
ধন সম্পদ পরের হাতে থাকলে প্রয়ােজনের সময় তা কাজে লাগে না। আর যদি তাই হয়, তাহলে সে সম্পদ অর্জনের প্রয়ােজনীয়তাই বা কী? কথায় আছে, "A bird in hand is worth two in the bush." তাই গ্রন্থথিত বিদ্যা আর পরের হাতের ধন রেখে তার গৌরবে গৌরবান্বিত হওয়ার কোনাে অর্থ নেই। যতক্ষণ পর্যন্ত না তা সঠিক অবস্থায় পৌঁছে।

মন্তব্য : মানবজীবনে বিদ্যা ও ধন-দুয়েরই প্রয়ােজন আছে। কিন্তু উভয়ই যেন নিজের জীবনে ব্যবহার করা যায় এমন নিশ্চয়তা থাকতে হবে। তাহলেই জীবন হবে সার্থক ও সুন্দর।

নবীনতর পূর্বতন