সাম্প্রতি বাংলাদেশে চালু হওয়া ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন নগদ।যেদিকে বাংলাদেশের ডিজিটাল এবং দ্রুততর ডিজিটাল লেনদেন খাতে রাজত্ব কারি বিকাশ তাদের লেনদেন প্রচুর পরিমাণ চার্জ করাএবং গ্রহকের আর্থিক নিরাপত্তায় ব্যার্থ।কিন্তু খুব অল্পদিনেই বাংলাদেশের ডিজিটাল লেনদেন খাতে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের নগদ গ্রাহকের আস্তা অর্জন করেছে।আপনি শুনলে হয়ত অবাক হবেন নগদ বর্তমানে দৈনিক ১০০ কোটি টাকার উপরে দৈনিক লেনদেন সম্পন্ন করে থাকে।যা এই ক্ষুদ্র সময়ে বিশাল অর্জন।
নগদ বোনাস

অপরদিকে বিকাশ তার একচেটিয়া ব্যাবসা হারাতে বসে এখন নগদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ আনার চেষ্টা করছে।বিকাশ বিভিন্ন উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ করছে নগদের ক্যাশ আউটের চার্জ বৃদ্ধি করার জন্য। উল্লেখ্য বিকাশ যেখানে প্রতি ১০০০ টাকা ক্যাশ আউটের জন্য চার্জ রাখে প্রায় ২০ টাকা।অপরদিকে নগদের ক্যাশ আউট চার্জ ১৪.৫ টাকা।একই সাথে নগদে প্রতি ১০০০ টাকা ক্যাশ ইন করলে গ্রাহককে ৫ টাকা বোনাস দেওয়া হয়। এর ফলে প্রতি ১০০০ টাকার লেনদেনের খরচ দাড়ায় ৯.৫ টাকা।তাহলে বিকাশ অপেক্ষা নগদে লেনদেনের খরচ অর্ধেকের কম।

অপরদিকে বিকাশের সেন্ডমানি চার্জ ৫ টাকা কিন্তু নগদে কোন প্রকার সেন্ডমানি চার্জ লাগে না।নগদ স্বল্প খরচে গ্রহককে সর্বোচ্চ মানের সেবা প্রদানের লক্ষ নিয়ে মাঠে নেমেছে।

এই সল্প পরিমান চার্জ করার ফলে বিকাশ তার গ্রাহকের মাথায় কাঠাল ভাঙ্গতে ক্রমশই ব্যার্থ হচ্ছে। যার প্রভাব পরছে ব্রাক ব্যাংকের বিকাশ তথা সমগ্র ব্রাক প্রতিষ্ঠানের আয়ের উপর।তাই বিকাশ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দারস্ত হচ্ছে নগদের ক্যাশ আউট চার্জ বারানোর লক্ষ নিয়ে।তারা বিভিন্ন অভিযোগ তুলছে।কিন্তু বাংলাদেশের ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেছেন ডাক বিভাগের নগদ গ্রহকের ডিজিটাল লেনদেন সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ নিয়ে মাঠে নেমেছে।এবং তারা নগদের মাধ্যমে ডিজিটাল লেনদেন খাতকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায়।তাই তাদের বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র করে লাভ হবেনা।

❤একটি মন্তব্য লিখুন❤

💥পোস্টটি কেমন লাগলো?
💥এ সম্পর্কে কোন প্রশ্ন বা কোন মতামত আছে?
💥মতামত বা প্রশ্ন থাকলে তা কমেন্ট করে আমাদের জানান!

নবীনতর পূর্বতন