CMS শব্দের পূর্নরুপ হচ্ছে কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (Content Management System)। তাহলে এই  সিএমএস (CMS) কি? এটি হচ্ছে একটি ওয়েব নির্ভর কম্পিউটার প্রোগ্রাম। যার মাধ্যমে খুব সহজেই একটি ওয়েবসাইট পরিচালনা করা সম্ভব। বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস (Wordpress)। তবে এর বাইরেও অনেক CMS রয়েছে। যেমন, পিএইচপি-নুক, ম্যাজেন্টা ইত্যাদি। আসুন কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম  (CMS) কি, কি কাজে লাগে এবং জনপ্রিয় কয়েকটি সিএমএস সম্পর্কে আলোচনা করি!

কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS) কি- What Is Content Management System (CMS): বর্তমান যুগ ইন্টারনেটের যুগ। এবং এই আধুনিক যুগে এসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন কাজ করে থাকি। যেমন, ব্যাকিং, বিমা, পড়ালেখা, ডিজিটাল স্বাস্থ্য সেবা, শপিং সহ আরো হাজারো রকমের কাজ। এবং এই সকল কাজ গুলো পরিচালনা করা হয় একেকটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। ওয়েবসাইটের ভিতরে প্রবেশ করলে আমাদের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন তথ্য পেয়ে যাই এক নিমিষেই। কিন্তু আমরা কি চিন্তা করেছি এই ওয়েবসাইট গুলো কিভাবে তৈরি করা হয়? হ্যা অনেকেই চিন্তা করি বা অনেকের প্রয়োজনে ওয়েবসাইট তৈরি করা লাগে। যখন জানা যায় কিভাবে ওয়েব সাইট তৈরি করা হয়। এবং ঠিক এই সময় আমরা একটি শব্দের মুখোমুখি হই যা হলো, কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। যার মাধ্যমে ওয়েব সাইটটি তৈরি এবং পরিচালনা করতে হয়।

আপনি এইযে, "কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম" নিয়ে আর্টিকেলটি পড়ছেন আমাদের ওয়েব সাইটে ঢুকে এটি হচ্ছে আমাকে ওয়েব সাইটের বাহ্যিক রুপ। কিন্তু আমি আর্টিকেলটি পাবলিক করেছি একটি কন্ট্রোল প্যানেল থেকে। যা আপনার সামনে দৃষ্যমান নয়। আমি যে সিস্টেম থেকে আর্টিকেলটি পাবলিশ করেছি এটিই হচ্ছে CMS.


এটি একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম যা ওয়েব ভিত্তিক। যা বিশাল পরিমান কোডিংয়ের মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে। কারন প্রতিটি ওয়েব সাইট আলাদা আলাদা সম্পুর্ন কোডিং করে তৈরি করতে বহু সময়,শ্রম, অর্থ এবং মেধার প্রয়োজন। যা সবার পক্ষে সম্ভব নয়। আর তাই আবিষ্কার করা হয় CMS এর। যেখানে আগে থেকেই ফাংশন করা রয়েছে এবং যেগুলো এডিট বা পরিবর্তন করে আলাদা আলাদা ওয়েবসাইট তৈরি করা সম্ভব। এবং এর মাধ্যমে বিভিন্ন লেখা, অডিও, ভিডিও, ফটো এবং গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টস প্রকাশ, সম্পাদনা, পরিবর্তন অথবা মুছে ফেলা সম্ভব।


বর্তমান সময়ে সর্বাধিক জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS) এর নাম হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস (Wordpress). ওয়ার্ডপ্রেস জনপ্রিয় হওয়ার কতগুলো কারন অবশ্যই রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারন হলো ওয়ার্ডপ্রেস ব্যাবহার করে ওয়েব সাইট তৈরি এবং পরিচালনা করা সহজ। এছাড়াও আরো কত গুলো CMS রয়েছে। সেগুলো হলো পিএইচপি-নুক, ম্যাজেন্টা ইত্যাদি। আসুন এই ডিজিটাল কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের জনপ্রিয় CMS টি সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেই!


ওয়ার্ডপ্রেস( Wordpress):

আমি আগেই বলেছি ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে সর্বাধিক জনপ্রিয় একটি সিএমএস(CMS). আর এটি জনপ্রিয় হওয়ার কারন হচ্ছে এটি ব্যাবহার করা সহজ। এবং রয়েছে বিশাল এক প্লাগিন (Plugin) এর সম্ভার। কোন আলাদা ফিচার যোগ করতে হলে আপনাকে প্রোগ্রাম বা কোডিং করার দরকার হবে না। এর সমাধান হিসেবে রয়েছে এই প্লাগিনস গুলো। শুধুমাত্র খুজে ইন্সটল করে দিলেই হলো। যা আপনি  জিরো কোডিং দক্ষতা নিয়েই করে ফেলতে পারবেন।


ওয়ার্ডপ্রেস CMS এর প্রতিষ্ঠাতা হলেন ম্যাট মুলেনওয়েগ তিনি ২০০৩ সালের ২৭শে মে এই ওয়ার্ডপ্রেস প্রাথমিক ভাবে প্রকাশ করেছিলেন। এটি পিএইচপি (PHP) এবং মাইএসকিউএল (MySQL) দ্বারা তৈরিকৃত একটি ইঞ্জিন। যদিও এটি সর্বপ্রথম একটি ব্লগিং প্লাটফর্ম হিসেবে পরিচিত ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে এটি CMS Engine Software প্রকাশ করা এবং  ডাউনলোড করতে দেওয়ার সুবিধার মাধ্যমে যে কোন ধরনের ওয়েবসাইট PHP, mySQL, HTML, Python, JavaScript ইত্যাদির জ্ঞান ছাড়াই তৈরি করা সুযোগ করে দেয়। এটি হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। বিশ্বের নামি-দামি চল্লিশ লক্ষ ওয়েবসাইটের ১২ শতাংশ তৈরি করা হয়েছে ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে। এবং প্রতিদিন হাজার হাজার ওয়েব সাইট তৈরি হচ্ছে এই CMS এর উপর নির্ভর করে।


এছাড়াও যেসকল কারনে এটি আরো বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে তা হলো এটি একটি সহজ, ওপেন সোর্স (Open Source) কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। তাই যে কেউ চাইলে এটি ডেভেলপমেন্ট করতে পারে। এবং বিভিন্ন ডেভেলপাররা এর জন্য বিনা বাধায় প্লাগিন তৈরি করতে পারে। যার মাধ্যমে যে কোন ধরনের সুবিধা সাইটে যুক্ত করতে হলে ব্যবাহারকারীর কোন সমস্যা পোহাতে হয় না। কমিউনিটি ব্লগিং সুবিধা। সর্বোপরি এটি ব্যাবহারের জন্য কোন অতিরিক্ত অর্থের দরকার হয় না!

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো