ভাবম্প্রসারনঃ অর্থই অনর্থের মূল।


মূলভাব : অর্থ মানবজীবনের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় একথা যেমন সত্য, তেমনি অর্থের যথাযোগ্য সদ্ব্যবহার করা না হলে তা বহু অনর্থের কারণ হয়ে থাকে। মানব জীবনের জন্য উপকারী অর্থ অপচয়ের মাধ্যমে ক্ষতির সৃষ্টি করে।

ভাবম্প্রসারনঃ অর্থই অনর্থের মূল

সম্প্রসারিত ভাব: জীবনের নানা কাজে অর্থের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই। আজীবন মানুষের প্রয়োজন মেটায় অর্থ। অর্থ না থাকলে জীবনে দুঃখ-কষ্টের শেষ থাকে না। জীবন তখন অর্থহীন বা মূল্যহীন বিবেচিত হয়। তাই অর্থ সব মানুষের কাম্য বস্তু। আবার এ অর্থই সব অনর্থের মূল। অর্থ ছাড়া যেহেতু জগতে কিছুই সম্ভব হয় না, তাই এ অর্থ পাওয়ার জন্য মানুষ অমানুষের মত আচরণ করতেও দ্বিধাবোধ করে না। অর্থকে করায়ত্ত করার জন্য মানুষ অনেক সময় নির্যাতন, অত্যাচার, অবিচার এবং যে-কোনো রকমের জঘন্য কাজ করতে সংকোচ বোধ করে না। পৃথিবীতে যত দ্বন্দ্ব, কলহ, অশান্তি, মারামারি, কাটাকাটি সংঘটিত হয়; তার অধিকাংশই ঘটে অর্থের কারণে। অর্থ লিপ্সা মানুষকে পশুতে পরিণত করে। অর্থকেই জীবনের বড় সম্পদ মনে করে মানুষ মানুষকে মেরে ফেলতেও দ্বিধাবোধ করে না। আবার অর্থ সম্পদ বেশি হলে তা ব্যয়ের ব্যাপারে মানুষ সংযম প্রদর্শন করে না। তখন নানারকম অন্যায় কাজেও অর্থ ব্যয়িত হয়। এর ফলে মানুষ তার স্বাভাবিক জ্ঞান হারিয়ে চরিত্রহীন হয়ে পড়ে। ফলে সমাজে নৈতিক অবক্ষয়ের সৃষ্টি হয়। তাই দেখা যায় সামাজিক সব অন্যায়-অনাচারের পিছনে অর্থ কাজ করে। এভাবে অর্থ অনর্থ ঘটায়।

মন্তব্য : সব অনর্থের মূল হিসেবে বিবেচিত এ অর্থ সম্পদের ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে জগতের প্রতিটি মানুষকে।

নবীনতর পূর্বতন
close